আজ শনিবার, ২৫শে সেপ্টেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১০ই আশ্বিন, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

দেবহাটা উপজেলার কদমখালিতে গণপিটুনি খেয়ে খালে ঝাঁপ দিল ছাত্রলীগ নেতা

সাতক্ষীরা প্রতিনিধিঃ অবৈধ অস্ত্রের ভয় দেখিয়ে একাধিক নিরীহ পরিবারের জমি দখল, বসতবাড়ি ভাংচুর, মৎস্য ঘের লুট, হামলা, মারপিটসহ মানুষকে জিম্মি ও ত্রাস সৃষ্টিকারী আলফাজ হোসেন সুরুজ নামের এক ছাত্রলীগ নেতাকে গণধোলাই দিয়েছে স্থানীয়রা। গণধোলাইয়ের একপর্যায়ে পাশ্ববর্তী খালের পানি সাঁতরে পালিয়ে যায় ওই ছাত্রলীগ নেতা।

এ সময় ছাত্রলীগ নেতা আলফাজ হোসেন সুরুজের সাথে থাকা ধর্ষণ ও হত্যাচেষ্টাসহ একাধিক মামলার আসামী আবু সুফিয়ানও গণধোলাইয়ের শিকার হন।বুধবার (৮ সেপ্টেম্বর) বিকালে দেবহাটা উপজেলার কদমখালি এলাকায় এই ঘটনা ঘটে। আলফাজ হোসেন সুরুজ সাতক্ষীরার দেবহাটা উপজেলার কুলিয়া ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ড ছাত্রলীগের সভাপতি।

এলাকাবাসী জানান, অবৈধ অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে দীর্ঘদিন ধরে এলাকার নিরীহ মানুষদের ওপর অত্যাচার ও জমি দখলসহ নানা অপকর্ম করছিল ছাত্রলীগ নেতা আলফাজ-সুফিয়ান বাহিনী। কিছুদিন আগে কুলিয়ার শ্যামনগর গ্রামের বৃদ্ধ আবুল কাশেম শেখের ছেলে মিলন শেখের বসতভিটার জমি দখলে নিতে হামলা চালায় আলফাজ ও সুফিয়ান বাহিনীর লোকজন। এ সময় তারা বৃদ্ধ কাশেম শেখ, তার ছেলে মিলন শেখ ও ছেলের বউ ফতেমা ফারহানাকে বেধড়ক মারপিট করে। তারা কাশেম শেখ ও ফারহানাকে গাছের সাথে বেঁধে নির্যাতন করে। তারা ফারহানার একটি হাত ভেঙে দেয়।

সর্বশেষ বুধবার সকালে ফের হামলা চালিয়ে তাদেরকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে কাশেম শেখের মৎস্য ঘের লুট করে আলফাজ, সুফিয়ান, আছাবুর, এলাহী বকস, জাহা বকসসহ অস্ত্রধারী বাহিনীর সদস্যরা।

এছাড়া পাশ্ববর্তী কদমখালি গ্রামের সংখ্যালঘু বৃদ্ধ মনিন্দ্রকে ৫০ বছরের পৈত্রিক ভিটেবাড়ি থেকে উচ্ছেদ করতে মুহুর্মুহু হুমকি ও চাপ প্রয়োগ করে যাচ্ছিল আলফাজ, সুফিয়ান, ছইলউদ্দীনসহ ওই বাহিনীর লোকজন।

কদমখালি গ্রামের বাবুরাম জানান, চিকিৎসার জন্য ভারতে যাওয়ার সুযোগে আমার ২৫ শতক জমি জোরপূর্বক ছইলউদ্দীন, আলফাজ ও সুফিয়ানরা দখলে নিয়ে নিয়েছে। জমিটিতে থাকা তার মায়ের শ্মশানটিও ভেঙে নিশ্চিহ্ন করে দিয়েছে এসব অস্ত্রবাজ সন্ত্রাসীরা।

বুধবার বিকেলে এসব ঘটনার ভুক্তভোগীদের সাথে সরেজমিনে দেখা করতে যান সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি ও কুলিয়ার সাবেক চেয়ারম্যান আছাদুল হক। এ সময় ছাত্রলীগ নেতা আলফাজ-সুফিয়ানসহ তাদের সাঙ্গপাঙ্গরা সেখানে গিয়ে অবৈধ অস্ত্র দেখিয়ে ত্রাস সৃষ্টি করতে চাইলে ভুক্তভোগী ও স্থানীয়রা তাদেরকে গণধোলাই দেন।

দেবহাটা থানার ওসি বিপ্লব সাহা বলেন, বিষয়টি সম্পর্কে জেনেছি। এ ব্যাপারে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

     আরো সংবাদ

ফেসবুকে খবর২৪ বিডি ডট নেট